যশোরে শালিসের নামে প্রবাসীর স্ত্রীকে মারপিট ও শ্লীলতাহানি, ভিডিও ভাইরাল

আরো পড়ুন

নিজস্ব প্রতিবেদক 
যশোরের মণিরামপুরে শালিসের নামে প্রবাসীর স্ত্রীকে বেধড়ক মারপিট ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতন ও শ্লীলতাহানির ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর সোমবার ওই গৃহবধূ মণিরামপুর থানায় অভিযোগ করেছেন।

মোবাইল ফোনে ফ্লেক্সিলোডের টাকা নিয়ে বিবাদে গত ৩ ফেব্রæয়ারি রাতে ওই নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। মুদি ও রাসায়নিক-কীটনাশক ব্যবসায়ী শাহাজান কবির, তার ছেলে হৃদয় হোসেনসহ চারজনের বিরুদ্ধে এই নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন ওই গৃহবধূ। শাহাজান কবির মণিরামপুর উপজেলার বড় চেৎলা গ্রামের খোকার ছেলে।

মণিরামপুরে ওই প্রবাসীর স্ত্রীকে নির্যাতনের ভিডিও ইতোমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, বহু মানুষের উপস্থিতিতে প্রকাশ্যে প্রবাসীর স্ত্রীকে মারধর করা হচ্ছে। মারপিট ও শ্লীলতাহানিকালে ওই প্রবাসীর স্ত্রীর আর্তনাদের চিৎকার শোনা যায়। এসময় তিনি কান্নাকাটি করে তাকে মারপিট না করার আকুতি-মিনতি করছিলেন।

জানা যায়, শাহাজান কবির উপজেলার বড় চেৎলা বাজারের মুদি দোকানি। তিনি একই সাথে রাসায়নিক ও কীটনাশকসহ ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করেন। ঘটনার দিন ৩ ফেব্রæয়ারি বিকেলে নিজ মোবাইল ফোনে ১৫০ টাকা ফ্লেক্সিলোড দিতে নির্যাতনের শিকার ওই নারী তার ছেলেকে দিয়ে শাহাজানের কাছে পাঠান। কিন্তু মোবাইলে টাকা না আসায় ওই নারী শাহাজানের দোকানে গিয়ে টাকা না আসার বিষয়টি অবহিত করেন। এ নিয়ে ওই নারী আর শাহাজান হোসেন বাক-বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে রাত ৮টায় শালিস বৈঠক ডাকা হয়। কিন্তু তার আগেই সন্ধ্যার পর শাহাজান কবির ও তার ছেলে হৃদয় হোসেন, মুনসুর রহমান, নজরুল ইসলামসহ কয়েকজন ওই নারীর বাড়িতে গিয়ে চড়াও হন। এক পর্যায়ে ওই নারীকে স্থানীয় বড় চেৎলা বাজারের লিটনের দোকানে নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। এসময় তিনি শ্লীলতাহানির শিকার হন।
ভুক্তভোগী ওই নারী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, তার উপর নির্যানের বিচার চান তিনি। এ জন্য তিনি থানায় অভিযোগ করেছে। ইউএনও’র কাছে হাত ধরে কান্নাকাটি করেছেন।

এ ব্যাপারে জানতে শাহাজান কবিরের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন দিলে রিসিভ করেন তার ছেলে হৃদয় হোসেন । তিনি পরে জানাবেন বলে সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেন। মণিরামপুর থানার ওসি এবিএম মেহেদী মাসুদ জানান, অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জাগো/জেএইচ 

 

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ