ভারতীয় নাগরিকদের মিয়ানমার ছাড়তে বলল ভারত সরকার

আরো পড়ুন

ফের অশান্ত হয়ে ওঠেছে মিয়ানমারের রাখাইন। বিদ্রোহের আগুনে জ্বলছে ওই দেশের এই রাজ্য। নিরাপত্তার অভাবে ভুগছেন সেখানকার মানুষ। এমন অবস্থায় দেশের নাগরিকদের রাখাইনে না যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। শুধু তা-ই নয়, দেশের নাগরিকদের রাখাইন ছাড়ার কথা বলে বিবৃতি জারি করা হয়েছে।

মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতা বৃদ্ধির সাথে সাথেই ভারতের নাগরিকদের জন্য উদ্বেগ প্রকাশ করেছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘রাখাইনে নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। ল্যান্ডলাইনসহ গোটা টেলি যোগাযোগ ব্যবস্থা কার্যত ধ্বংস হয়ে পড়েছে। নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের অভাবের কারণে চাহিদা বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে ভারতীয় নাগরিকদের রাখাইনে ভ্রমণ করতে নিষেধ করা হচ্ছে।’

সেইসাথে আরো বলা হয়েছে, ‘যে সব ভারতীয় নাগরিক ইতিমধ্যেই রাখাইনে রয়েছেন, তাদের অবিলম্বে ওই রাজ্য ছাড়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।’ পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়ে ওঠার আগেই দেশের নাগরিকদের নিরাপদে ভারতে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছে মোদি সরকার।

২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকেই মিয়ানমারে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবিতে বার বার বিদ্রোহ হয়েছে। গত বছরের অক্টোবর থেকে সশস্ত্র জাতিগোষ্ঠী এবং মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর মধ্যে তীব্র লড়াই শুরু হয়েছে। নভেম্বর থেকে সে দেশের তিন বিদ্রোহী গোষ্ঠী— ‘তাং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি’ (টিএনএলএ), ‘আরাকান আর্মি’ (এএ) এবং ‘মায়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স আর্মি’ (এমএনডিএএ)-র নয়া জোট ‘ব্রাদারহুড অ্যালায়্যান্স’ সামরিক জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে।

তার পর থেকেই ভারতের সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের বেশ কয়েকটি অঞ্চল অশান্ত হয়ে উঠেছে। যার প্রভাব মণিপুর এবং মিজোরামের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় পড়েছে। যা ভারতের কাছে অন্যতম মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী তার বিরোধীদের লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালাচ্ছে। জানা গেছে, রাখাইন রাজ্যের রামরি শহরের রামরি বিমানঘাঁটি থেকেই হামলার ছক কষা হচ্ছে। দেশের পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে, তা নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন মিয়ানয়ারের সাধারণ মানুষ। প্রাণ বাঁচাতে এক প্রদেশ থেকে আর এক প্রদেশ ছুটে বেড়াচ্ছেন তারা।
সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

জাগো/এসআই

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ