বেনাপোল বন্দরে পড়ে থাকা মেয়াদোত্তীর্ণ রাসায়নিকে আগুন-আতঙ্ক

আরো পড়ুন

নিজস্ব প্রতিবেদক

বেনাপোল বন্দরের বিভিন্ন শেড ও ইয়ার্ডে বছরের পর বছর ধরে পড়ে আছে ১২ হাজার ৬৫৯ মেট্রিক টন আমদানি করা নিলাম তালিকার পণ্য। এর মধ্যে ৩ হাজার ২৫০ মেট্রিক টন রয়েছে মেয়াদোত্তীর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ বিপজ্জনক রাসায়নিক দ্রব্য। এসব দ্রুত অপসারণ না হলে বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা এই শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তবে বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, ঝুঁকিপূর্ণ পণ্য সরাতে কাস্টমসকে লিখিতভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, ভারত থেকে যেসব পণ্য আমদানি হয় এর বড় একটি অংশ রয়েছে তরল অ্যাসিড, পাউডার জাতীয় কেমিক্যাল ও রাসায়নিক দ্রব্য। নিয়ম রয়েছে, আমদানির পর ৩০ দিনের মধ্যে এসব পণ্য বন্দর থেকে খালাস করতে হবে। কেউ সময়মতো খালাসে অপারগতা প্রকাশ করলে কাস্টমস ওই পণ্য চালান নিলাম তালিকায় তোলে।

বেনাপোল বন্দরের বিভিন্ন পণ্যাগারে বর্তমানে নিলাম তালিকার পণ্যের পরিমাণ ১২ হাজার ৬৫৯ মেট্রিক টন। এর মধ্যে ৩ হাজার ২৫০ মেট্রিক টন রয়েছে মেয়াদোত্তীর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ বিপজ্জনক রাসায়নিক দ্রব্য। দীর্ঘদিন ধরে এসব পণ্য বন্দরে পড়ে থাকায় একদিকে যেমন জায়গা সংকটের সৃষ্টি করছে, তেমনি অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলেছে।

তবে এসব পণ্য অপসারণে বন্দর বারবার কাস্টমসকে অবহিত করলেও এখন পর্যন্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়ায় আমদানিকারকেরা অগ্নিকাণ্ডের আতঙ্কে ভুগছেন। এদিকে গত ১২ বছরে বেনাপোল বন্দরে ছোট-বড় সাতটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। যেখানে ব্যবসায়ীরা কয়েক শ কোটি টাকার ক্ষতির শিকার হয়েছেন।

এ বিষয়ে আমদানিকারক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বন্দরের বিভিন্ন শেডে মেয়াদোত্তীর্ণ এসব রাসায়নিক পণ্যের কারণে সব সময় আগুন-আতঙ্কে থাকতে হয়। জায়গা সংকটও সৃষ্টি হচ্ছে।

বেনাপোল আমদানি-রপ্তানি সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক বলেন, বেনাপোল বন্দরের ধারণক্ষমতা ৫০ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু এখানে সব সময় পণ্য থাকে দেড় লাখ মেট্রিক টনের কাছাকাছি। এমনিতেই জায়গা সংকট, এর মধ্যে এসব ধ্বংসযোগ্য পণ্য দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকায় আরও জায়গা সংকটের সৃষ্টি করছে। সচেতন না হওয়ায় প্রতি বছর বন্দরে আগুনের ঘটনায় অর্থনৈতিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে ব্যবসায়ীরা। অনেকে পুঁজি হারিয়ে ব্যবসা বন্ধ করেছে। এ অবস্থা থেকে মুক্তি চান আমদানিকারকেরা।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের কাস্টমস বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল লতিফ বলেন, ‘নিরাপদ বাণিজ্যে এসব ঝুঁকিপূর্ণ রাসায়নিক পণ্য দ্রুত সরিয়ে নেওয়া দরকার। আশা রাখছি, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

বেনাপোল ফায়ার স্টেশন ইন্সপেক্টর রতন কুমার সরকার বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ রাসায়নিক দ্রুত না সরালে যেকোনো সময় বড় ধরনের আগুনের ঘটনা ঘটতে পারে। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার সচেতন করা হয়েছে। কিন্তু তাদের গুরুত্ব কম।

বেনাপোল বন্দর পরিচালক (ট্রাফিক) রেজাউল করিম বলেন, ধ্বংসযোগ্য এসব ঝুঁকিপূর্ণ রাসায়নিক পণ্য সরাতে কাস্টমসকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তারা আশ্বস্ত করেছে, দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

বন্দর সূত্রমতে, ২০২২ সালের ১৫ এপ্রিল ৩১ নম্বর ইয়ার্ডে আগুনে পাঁচটি ভারতীয় ট্রাক ও মেশিনারিজ পণ্য পুড়ে যায়; ২০২১ সালের ৭ জুন সন্ধ্যায় বন্দরের ৩৫ নম্বর পণ্যাগারের সামনে মহাসড়কের ওপর দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকে অগ্নিকাণ্ডে মালামালসহ একটি ট্রাক পুড়ে যায়; ১৯৯৬ সালে বন্দরের ১০ নম্বরসহ ১০টি পণ্যাগারে আগুনে পুড়ে ৩০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়; ২০০১ সালে ২৬ নম্বর পণ্যাগারে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতি হয় ৩০ কোটি টাকার; ২০০৫ সালে ১০ ও ৩৫ নম্বর পণ্যাগারে আগুনের ঘটনায় ক্ষতি হয় ৭০ কোটি টাকা; ২০০৯ সালের ১ জানুয়ারিতে ৩৫ নম্বর পণ্যাগারে আগুনে ক্ষতি হয় প্রায় ৫০০ কোটি টাকা; একই বছরের ২২ জুন ২৭ নম্বর পণ্যাগারে আগুনে ক্ষতি হয় ১৫০ কোটি; ২০১৬ সালে ২ অক্টোবরে ২৩ নম্বর পণ্যাগারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৫০০ কোটি টাকা; ২০১৮ সালের ৬ জুন বন্দরের ২৫ নম্বর শেডে আগুন ধরে এক ট্রাক পণ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়, ভারতীয় ট্রাক টার্মিনালে এ ঘটনায় প্রায় ১০ কোটি টাকার পণ্য পুড়ে যায়; ২০১৯ সালের ২৭ আগস্ট বন্দরের ৩৫ নম্বর শেডে অগ্নিকাণ্ড প্রায় ৫০ কোটি টাকার পণ্য পুড়ে যায় এবং সর্বশেষ গত ৭ জুন বেনাপোল বন্দরের ৩৫ নম্বর পণ্যাগারের সামনে মহাসড়কের ওপর দাঁড়িয়ে থাকা ভারতীয় ব্লিচিং পাউডারবাহী ট্রাকে আগুন লেগে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়। এ ছাড়া এ সময়ে ছোটখাটো আরও পাঁচ-ছয়টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

 

জেবি/জেএইচ

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ