বাঘারপাড়া-শালিখায় পাঁচ শতাধিক মানুষের চিকিৎসা সেবা 

আরো পড়ুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপনার মেয়ের এখন কি অবস্থা? এমন প্রশ্নে একগাল হেসে নাসরিন খাতুন বললেন, ‘আগে বসতে বা দাঁড়াতেও পারতো না। এখন অনেকটা ভাল। এমনিতেই দাঁড়াতে পারে। আগে চিকিৎসার জন্য টাকা খরচ করে শহরে যেতে হতো। এখন মেয়ের স্কুলেই সুযোগ তৈরি হওয়ায় চিকিৎসা করাতে পারছি।’ মাগুরার শালিখা উপজেলার হরিশপুর গ্রামের আব্দুল জব্বারের স্ত্রী নাসরিন খাতুনের মেয়ে হাবিবার (৭) নিয়ে এসেছিলেন মোবাইল থেরাপি সেবা ক্যাম্পে। মেয়ে আস্তে আস্তে সুস্থ হতে থাকায় খুশি তিনি!
কথা হয় চিকিৎসা নিতে আসা যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বড়খুদড়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব জরিনা বেগমের সাথে। তিনি বললেন, ‘আমাগের বাড়ির পাশে প্রতিবন্ধী স্কুলে টাউন থেইকে বড় ডাক্তার আইয়েছে শুনিছি। এখনে আইসে ডায়াবেটিস পরীক্ষা করালাম। পরীক্ষা করে ঠিক পালাম ডায়াবেটিস মেলা বেশি। ডাক্তারে কাগজে ওষুধ লিখে দিল। নিয়মিত হাঁটাহাঁটি করতি বলেছে। ফ্রি ওষুধও দিল।’
শুধু নাসরিনের মেয়ে এবং বৃদ্ধা জরিনাই নন; তাদের মতো চিকিৎসাসেবার পাশাপাশি থেরাপি ও বিনামূল্যে ওষুধ পেয়েছেন, যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা ও পার্শ্ববর্তী মাগুরার শালিখা উপজেলার ছয়গ্রামের তিনশ নারীসহ বিদ্যালয়ের সুবিধাবঞ্চিত দুইশ শিক্ষার্থী।
জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের নির্দেশনায় প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র যশোরের সহযোগিতায় দু’দিনব্যাপি মোবাইল থেরাপি সেবা এবং দিনব্যাপি ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের আয়োজন করে বাঘারপাড়ার বন্দবিলা ইউনিয়নের আরশাদ আছিয়া ওয়েলফেয়ার সোসাইটি।
সোমবার (০৪ ডিসেম্বর) সকাল দশটায় স্থানীয় আরশাদ আছিয়া অটিজম ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে ধারাবাহিক এ কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, বিদ্যালয়ের সভাপতি অ্যাড. জহুরুল হক জহির। প্রধান অতিথি ছিলেন, যশোর জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা মুনা আফরিণ। বিশেষ অতিথি ছিলেন, প্রেসক্লাব যশোরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিলন রহমান ও বাঘারপাড়া উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের ইউএসডবিøউ মাহবুবুর রহমান। রোগীদের চিকিৎসাসেবা প্রদান করেন, যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অবসরপ্রাপ্ত সহকারী অধ্যাপক গাইনি ও প্রসূতি বিশেষজ্ঞ এবং সার্জন ডা. প্রকাশ চন্দ্র মজুমদার। এর আগে অতিথিরা বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলে অতিথি ও সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীরা একে অন্যকে লাল গোলাপ দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।
আরশাদ আছিয়া ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক শামীম আক্তার বলেন, ‘সেবার মানসিকতা নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এলাকাবাসীর দোরগোড়ায় বিনামূল্যে স্থাস্থ্যসেবা ও ওষুধ পৌঁছে দিতে কাজ করছি। ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। এর মাধ্যমে বিদ্যালয়ের সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীরাও নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা পাবে। ধারাবাহিক এ কর্মসূচি প্রতিমাসের প্রথম সোমবার আয়োজন করা হচ্ছে।’
কর্মসূচির উদ্বোধন শেষে অতিথিরা মেডিকেল ক্যাম্প ঘুরে দেখেন পাশাপাশি শিক্ষক ও অভিভাবকদের নানা প্রতিবন্ধকতার কথা শোনেন এবং পরামর্শ প্রদান করেন। দুপুরে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের হাতে পুষ্টিকর খাবার তুলে দেন অতিথিরা।

 

জেবি/জে এইচ

 

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ