জুমার দিনের আমল

আরো পড়ুন

সপ্তাহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিন হল জুমার দিন। এ দিন ইসলামের ইতিহাসে বড় বড় ও মহৎ কিছু ঘটনা ঘটেছে। জুমার গুরুত্ব আল্লাহ তাআলার কাছে এতোখানি যে, কোরআনে ‘জুমা’ নামে একটি স্বতন্ত্র সুরাও নাজিল করা হয়েছে।

জুমার দিনের বিশেষ কিছু আদব ও শিষ্টাচার রয়েছে। কিছু জুমার আগে, কিছু মসজিদের, কিছু খুতবার সময়ের আর কিছু নামাজের আগে-পরের।

জুমার আগের আমল

• গোসল করা (ওয়াজিব)

• নখ ও চুল কাটা

• সুগন্ধি ব্যবহার করা

•মিস্ওয়াক করা

•গায়ে তেল ব্যবহার করা

•উত্তম পোশাক পরিধান করা

•পায়ে হেঁটে মসজিদে গমন

•জুমার দিন ফজরের নামাজে সুরা সাজদা ও সুরা দাহর পড়া

 

মসজিদে প্রবেশের আমল

•ইমামের দিকে মুখ করে বসা

•আগে ভাগে মসজিদে যাওয়া

 

খুতবার সময়ের আমল

•মনোযোগ সহ খুতবা শোনা ও চুপ থাকা (ওয়াজিব)

•খুতবা চলাকালীন সময়ে মসজিদে প্রবেশ করলে তখনও দুই রাকাত ‘তাহিয়্যাতুল মাসজিদ’ সালাত আদায় করা

•জুমার দিন নামাজের আগে মসজিদে জিকর বা কোনো শিক্ষামুলক হালকা না করা

•কেউ কথা বললে ‘চুপ করুন’ এটুকুও না বলা

নামাজের আগে-পরের আমল

•সুরা জুমা ও সুরা মুনাফিকুন দিয়ে জুমার নামাজ আদায় করা

•জুমার দিন বেশি বেশি দুরুদ পড়া

•এ দিন বেশী বেশী দোয়া করা

•খুতবার সময় ইমামের কাছাকাছি বসা

•জুমার দিন সুরা কাহফ পড়া

•জুমার ফরজ নামাজ আদায়ের পর মসজিদে ৪ রাকাত সুন্নাত আদায় করা

জুমার দিনের কিছু অতিরিক্ত আমল

 

•মসজিদে যাওয়ার আগে কাঁচা পেয়াজ, রসুন না খাওয়া ও ধুমপান না করা

•ঘুমের ভাব বা তন্দ্রাচ্ছন্ন হলে বসার জায়াগা বদল করে বসা

•ইমামের খুৎবা দেওয়া অবস্থায় দুই হাঁটু উঠিয়ে না বসা

•খুতবার সময় খতিবের কোনো কথার সাড়া দেওয়া বা তার প্রশ্নের জবাব দানে শরিক হওয়া জায়েজ

জুমার দিনের আমল পালন করলে আল্লাহ তাআলার রহমত ও বরকত লাভ করা যায়। এ দিনের আমলগুলো পালন করে আমরা আমাদের আমলকে আরও সুন্দর ও পরিপূর্ণ করে তুলতে পারি।

জাগো/আর‌এইচ‌এম 

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ