গোপন ভিডিও ধারণ করে নারীকে ধর্ষণ ও নির্যাতন, বিটিআরসির কর্মকর্তা গ্রেফতার

আরো পড়ুন

পরিচয় গোপন করে এক নারীর সঙ্গে সম্পর্ক তৈরির পর ধর্ষণ এবং গোপনে ভিডিও ধারণ করে প্রতারণা ও নির্যাতনের অভিযোগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) উপপরিচালক সনজিব কুমার সিংহকে গ্রেফতার করেছে ধানমন্ডি থানার পুলিশ।

তার মুঠোফোন থেকে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ভিডিও ও ছবি উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পারভেজ ইসলাম বলেন, গত শুক্রবার ধানমন্ডি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বিটিআরসির উপপরিচালক সনজিব কুমার সিংহের বিরুদ্ধে মামলা করেন এক নারী। ওই দিনই সনজিবকে গ্রেফতার করা হয়।

ওসি জানান, পরদিন শনিবার সনজিবকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালত তাকে জেলগেটে এক দিন জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন।

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ২০১৩ সালে সনজিবের সঙ্গে পরিচয় হয় ওই নারীর। তখন সনজিব তার নাম–পরিচয় গোপন করেন। পরে তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু সনজিবের প্রকৃত পরিচয় জানার পর তিনি আর সম্পর্ক এগিয়ে নিতে চাননি।

তবে সনজিব তাকে বিয়ের আশ্বাস দেন। ২০১৪ সালে সনজিব কৌশলে তাকে একটি বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করেন এবং ভিডিও ধারণ করেন। ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ছয় থেকে সাত বছর ধরে তাকে ধর্ষণ করেন। এসব ঘটনার ভিডিও ধারণ করে রাখেন সনজিব। এগুলো পরিবারের সদস্যদের মুঠোফোনে পাঠিয়েও ব্ল্যাকমেল করেন।

ভুক্তভোগী নারী এজাহারে বলেন, ১৫ আগস্ট সনজিব আবারো তার ধানমন্ডির বাসায় ডেকে এনে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ধর্ষণ করেন। এ সময় তাকে শারীরিক নির্যাতন করে বাসায় আটকে রাখেন। পরে সনজিবের এক বন্ধু এসে তার অবস্থা দেখে কী হয়েছে, তা জানতে চান। বিস্তারিত জানানোর পর সনজিবের বন্ধু তাকে বাসায় দিয়ে যান।

সনজিব ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় বসবাস করেন।

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ