গদখালীতে টিকটকারদের অশ্লীলতা, সমালোচনার ঝড়

আরো পড়ুন

টিকটকারদের অশ্লীলতার দৌরাত্ম্য বেড়েছে ফুলের রাজধানীখ্যাত যশোরের গদখালীতে। গদখালীর প্রাণকেন্দ্র পানিসারা, হাড়িয়া ফুল মোড় এলাকার বিভিন্ন পার্ক এবং ফুল বাগানে চলছে অশ্লীল পোশাক-আশাকে অঙ্গভঙ্গি দিয়ে নৃত্য করে ভিডিও ধারণ। আর এ সকল অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে টিকটকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করছেন টিকটকাররা। এসকল ভিডিও চিত্র নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেমন সমালোচনা এবং নিন্দার ঝড় বইছে তেমনি সুনাম হারাচ্ছে দেশের বৃহত্তর এই ফুল সেক্টর।

সম্প্রীতি এক যুবতীকে গদখালীর কোন একটি পার্কে বোরকা পরিহিত অবস্থায় থ্রিডি স্টান্ডে ডিজে গানে অশ্লীলভাবে নৃত্য করার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। বোরকা পরিহিত অবস্থা এ ধরনের কার্যকালাপকে ইসলামিক দৃষ্টিকোনে অন্যায় এবং চরম সামাজিক অবক্ষয় বলে মন্তব্য করছেন সচেতন মহল। শুধু তাই নয় থ্রিডি স্টান্ডে এ ধরনের আরও অশ্লীল নৃত্যে সয়লাব সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। এ সকল ভিডিও পোস্টের কমেন্টের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মন্তব্য করেছেন অনেকে।

মাহাবুর রহমান নামে এক ব্যাক্তি মন্তব্য করেছেন, ‘কয়েকদিন পরে যশোরের মানুষ যশোরের পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করবে। ঐতিহ্যের স্থানে এ ধরনের কার্যকালাপ বন্ধ করা উচিত।’

মাসুদ রানা নামে আরেক ব্যাক্তি মন্তব্য করেছেন, ‘গদখালীর পানিসারা এলাকার বিনোদন কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়া হোক। এ ধরণের ভিডিও ইসলামের দৃষ্টিতে চরম অবক্ষয়। একটা দর্শনীয় স্থানে এ ধরণের কর্মকান্ড কখনোই কাম্য নয়।’

এম.কে দেলওয়ার হোসেন রিয়াদ মন্তব্য করেছেন, ‘যশোরের মান ইজ্জত শেষ। গদখালীতে আগে মানুষ যেত ফুলের সৌরভ নিতে এখন অনেকে যায় টিকটক করতে। এদের আইনের আওতায় আনা উচিত।’

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারী) দুপুর সরজমিনে গদখালীর পানিসারা ফুল মোড় এলাকাড মনোয়ারা ফ্লাওয়ার পার্কে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে থ্রিডি স্টান্ডে অশ্লীল গানের সাথে নৃত্য ও অঙ্গভঙ্গি করে ভিডিও বানাচ্ছেন টিকটকাররা। তবে এ বিষয়ে পরবর্তীতে বক্তব্য চাইলে টিকটক করার বিষয়টি অস্বীকার করেন পার্ক কতৃপক্ষ।

মনোয়ারা ফ্লাওয়ার পার্কের মালিক শাহাজাহান আলী বলেন, ‘ আগে এখানাকার বিভিন্ন পার্কে এই থ্রিডি স্টান্ডে টিকটক নাচানাচি করে ভিডিও বানাতো অনেকে। এটি বন্ধ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘আজ (সোমবার) এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি।’

ঝিকরগাছা দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসার শিক্ষক বিশিষ্ট সমাজকর্মী আশরাফুজ্জামান বাবু বলেন, ইসলাম ধর্মের দৃষ্টিকোণ থেকে মহিলাদের এধরণের আচরণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। পানিসারা ফুলমোড়ে যেটা ঘটছে সেটা সামাজিক অবক্ষয়ের একটা চিত্র। এখানে অশ্লীলতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রশাসনের উচিৎ এধরণের ঘটনা কঠোরভাবে দমন করা।’

গদখালী ফুল উৎপাদন ও বিপনন সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, ‘গত বেশ কিছুদিন ধরে গদখালির বিভিন্ন পার্কে এবং ফুল বাগানে এই টিকটকারদের দৌরাত্ম বেড়েছে। আমি নিজেও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ ধরণের ভিডিও দেখেছি। আমরা ইতিমধ্যে পুলিশ প্রশাসনকে এই অশ্লীলতা বন্ধ করতে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছি।’

ঝিকরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভুইঁয়া বলেন, ‘গদখালীতে টিকটকারদের অশ্লীলতার ব্যাপারে জেনেছি। আমরা দ্রুত এর একটা পদক্ষেপ নিব এবং এগুলো পুরোপুরি ভাবে বন্ধ করবো।’

জাগো/আরএইচএম

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ