ইমরান খান মোট ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করবেন

আরো পড়ুন

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তোশাখানা মামলায় ১৪ বছরের কারাদণ্ড এবং সাইফার মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড পেয়েছেন। আইন বিশেষজ্ঞ এবং অবসরপ্রাপ্ত বিচারকগণ মনে করেন, দুই রায় মিলিয়ে ইমরান খানের কারাদণ্ড সমবর্তী হবে। অর্থাৎ, তিনি সর্বাধিক ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করবেন।

সমবর্তী দণ্ডতে একাধিক শাস্তি একসাথে ভোগ করতে হয়। আর সমন্বিত দণ্ডের ক্ষেত্রে পূর্বের দণ্ড শেষ হওয়ার পর নতুন দণ্ড কার্যকর হয়।

আইনি বিশেষজ্ঞ ওয়াজিহুদ্দিন আহমেদ বলেন, শাস্তি সমবর্তী হবে নাকি সমন্বিত হবে তা আদালতের আদেশে স্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকতে হবে। ইমরান খানের মামলায় যদি আদালত সমবর্তী দণ্ড হিসেবে উল্লেখ করে, তবে তাকে সর্বাধিক ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

ইমরান খান কত দ্রুত জামিন পাবেন সে সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে অবসরপ্রাপ্ত বিচারক ওয়াজিহ বলেন, যদি দেশে কোনো নির্বাচনী প্রক্রিয়া চলমান থাকে এবং যেকোনো জাতীয় নেতার বিচার প্রক্রিয়াধীন থাকে, তবে তার মামলার আপিলের ব্যাপারে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া উচিত। এক্ষেত্রে হয় মামলার শুনানি দ্রুততম সময়ে শেষ করতে হবে অথবা দণ্ড আপাতত স্থগিত করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, এই মামলাগুলোর বিচারিক পদ্ধতি হতাশাজনক। এভেনফিল্ড মামলার মতো ইমরান খানের মামলায়ও অনেক বেশি তড়িঘড়ি দেখা গেছে।

প্রাক্তন সুপ্রিম কোর্ট বার সমিতির প্রেসিডেন্ট সিনেটর কামরান মুর্তাজা বলেন, যখন একাধিক দণ্ডাদেশ বা দণ্ড হয়, তখন আদালত দণ্ড সমবর্তী না সমন্বিত হবে তা সর্বশেষ রায়ে পরিষ্কার করে। সাধারণত, নিয়ম হলো আদালত বড় অপরাধ বা শীর্ষ সন্ত্রাসীদের সমন্বিত শাস্তি দিয়ে থাকে। ইমরান খানের মামলায়, এটি সমবর্তী দণ্ড হবে এবং তিনি কেবল সর্বাধিক দণ্ডটি ভোগ করবেন।

মুর্তাজা আরো বলেন, যদি কোন কারণে শাস্তি সমবর্তী না সমন্বিত হবে তা আদালত পরিষ্কার না করে, তাহলে সিআরপিসির ৫৬১ নম্বর ধারার অধীনে অভিযুক্তের আইনজীবী সমবর্তী সাজার আবেদন করতে পারবেন।

এনএবি আইনে সর্বোচ্চ সাজা হওয়ায় তোশাখানা মামলায় ইমরান খান কত তাড়াতাড়ি জামিন পেতে পারেন সে সম্পর্কে সিনেটর কামরান মুর্তজা বলেন, যদি এক বছরের মধ্যে তার আপিল নিষ্পত্তি না হয়, তবে তার আইনী দলকে সিআরপিসির ধারা ৪২৬ এর অধীনে জামিনের জন্য আবেদন করতে হবে। কিন্তু যেহেতু এটি সর্বোচ্চ শাস্তি, সেক্ষেত্রে আইনজীবীরা কখনই আগাম জামিনের নিশ্চয়তা দেন না। ইমরানের আবেদন তার পালা না আসা পর্যন্ত সারিতে থাকবে যাতে কয়েক মাস পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

উপসংহার:

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তোশাখানা মামলায় ১৪ বছরের কারাদণ্ড এবং সাইফার মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড পেয়েছেন। আইন বিশেষজ্ঞদের মতে, দুই রায় মিলিয়ে ইমরান খানের কারাদণ্ড সমবর্তী হবে। অর্থাৎ, তিনি সর্বাধিক ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করবেন।

ইমরান খান কত দ্রুত জামিন পাবেন সে সম্পর্কে বলা যায় না। যদি তার আপিল এক বছরের মধ্যে নিষ্পত্তি হয়, তবে তিনি জামিন পেতে পারেন। কিন্তু যদি তার আপিল নিষ্পত্তি না হয়, তবে তাকে সর্বোচ্চ ১৪ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

জাগো/আরএইচএম

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ